সকল অন্যায়ের বিরুদ্ধে বলিষ্ঠ কণ্ঠস্বর

দ. কোরিয়ার সঙ্গে সামরিক মহড়া বাতিল হয়নি – যুক্তরাষ্ট্র

দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে আর সামরিক মহড়া বাতিলের কোনও পরিকল্পনা নেই বলে জানালেন মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেমস ম্যাটিস। উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে বৈঠকের পর তাদের সঙ্গে সামরিক মহড়া স্থগিত করেছিল যুক্তরাষ্ট্র। তবে এবার ম্যাটিস বলেন, আমাদের মহড়া বাতিলের কোনও পরিকল্পনা নেই। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরার এক প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য জানা যায়। গত ১২ জুন (মঙ্গলবার) সিঙ্গাপুরে উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং উনের সঙ্গে ঐতিহাসিক এক বৈঠকের পর দুই দেশের মধ্যে সমঝোতা চুক্তি সম্পন্ন হয়। সেই চুক্তির বিষয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে কোরীয় উপদ্বীপে ‘উষ্কানিমূলক যুদ্ধ যুদ্ধ খেলা’ বন্ধের ঘোষণা দিয়ে চমক দেন ট্রাম্প। তিনি বলেন, মার্কিন সেনাদের দেশে ফিরিয়ে নিতে চান তিনি। আগে এই সামরিক মহড়া সমর্থন করলেও ট্রাম্প এখন সেদিন একে ‘উষ্কানিমূলক’ আখ্যা দেন।
এরপর ২২ জুন দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে সামরিক মহড়া বন্ধের ঘোষণা আসে যুক্তরাষ্ট্রের তরফ থেকে। মঙ্গলবার জিম ম্যাটিস বলেন, উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে বৈঠকের পর বিনয়ের খাতিরে মহড়া বন্ধ করেছিল যুক্তরাষ্ট্র। কিন্তু এখন আর কোনও মহড়া বাতিলের সিদ্ধান্ত নেই তাদের। তিনি বলেন, ‘এই মুহূর্তে আমাদের আর কোনও সামরিক মহড়া বাতিলের পরিকল্পনা নেই। আর সামনের বছরের বড় মহড়ার ব্যাপারে এখনও পরিকল্পনা হয়নি। জুনের বৈঠকে কোরীয় উপদ্বীপে পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ নিয়েও একমত হয়েছিলেন কিম জং উন। তবে পুরোপুরি তাদের পরমাণু অস্ত্র ত্যাগ করবে কি না সেই বিষয়ে নিশ্চিত করে কিছু বলেননি। এরপর কূটনীতিকরাও এই প্রক্রিয়ার বেশিদূর অগ্রগতি ঘটাতে পারেনি। গত সপ্তাহে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও ও উত্তর কোরীয় কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক বাতিল করে। ট্রাম্প অভিযোগ করেন, পরমাণু নিরস্ত্রীকরণের যথাযথ অগ্রগতি হয়নি। আর এজন্য চীনের ওপর দায় চাপান তিনি। ট্রাম্প বলেন পিয়ংইয়ংকে নিরস্ত্রীকরণের ক্ষেত্রে চীনের ভূমিকা যথেষ্ট নয়। তবে চীন এই দাবি উড়িয়ে দিয়েছে। তারা জানায়, মার্কিন প্রেসিডেন্টের এমন দাবি দায়িত্বজ্ঞানহীন।

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.