সকল অন্যায়ের বিরুদ্ধে বলিষ্ঠ কণ্ঠস্বর

ভারতে কারাভোগ শেষে দেশে ফিরল দুই কিশোর

0

?

হিলি প্রতিনিধি:
বন্ধুর প্রলোভনে পড়ে অবৈধপথে ভারতের আজমীর শরিফ যাওয়ার পথে ভারতে আটক বাংলাদেশি দুই কিশোর বালুরঘাট শোভায়নহোমে ৮ মাস কারাভোগ শেষে হিলি ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট পুলিশের কাছে ফেরত দিয়েছে ভারতের হিলি অভিবাসন পুলিশ।
গতকাল সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টায় হিলি ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট গেটের শূন্যরেখা দিয়ে ট্রাভেল পারমিটের মাধ্যমে ভারতের হিলি অভিবাসন কেন্দ্রের (ওসি) নাসির হোসেন তাদের হিলি ইমিগ্রেশন চেকপোস্টের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুজ্জামানের নিকট ফেরত দেন। বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা আইনজীবী সমিতির উদ্যোগে তাদের দেশে ফেরত আনা হয়। এসময় সেখানে ভারতের হিলি বিএসএফ ক্যাম্প কমান্ডার এসি ইমামুল হক ও ডিএস সিধু এবং বিজিবি হিলি সিপি ক্যাম্প কমান্ডার সুবেদার আতাহার আলী উপস্থিত ছিলেন।
ফেরত আসা দুই কিশোর হলো, মাদারিপুর জেলার শিপচড় উপজেলার কুরুপচড় গ্রামের জাহাঙ্গীর মাতব্বরের ছেলে শান্ত মাতব্বর (১৩) এবং পিরোজপুর জেলার কাউখালি উপজেলার শিয়ালকাঠি গ্রামের তোফাজ্জল গাজীর ছেলে লাভলু গাজী (১৩)। তারা ঢাকার মিরপুর ১১ নম্বরে বসবাস করত। তারা দুজনেই ভারতের বালুরঘাট শিশু শোভায়ন হোমে ৭ মাস ২০ দিন আটক ছিল।
ফেরত আসা দুই কিশোর শান্ত ও লাভলু জানান, ঢাকার মিরপুরে যে বাসায় তারা ভাড়া থাকতেন সেখানকার সানি নামের সমবয়সী এক বন্ধু তাদের ভারতের আজমীর শরিফ জিয়ারত করতে যাওয়ার কথা বললে আমরা তার কথায় রাজি হয়। সে মোতাবেক সানিসহ আমরা চলতি বছরের মে মাসের ১ তারিখে বাসযোগে ঢাকা থেকে হিলি আসি। পরে দালালের মাধ্যমে প্রত্যেকে দেড় হাজার টাকা করে দিয়ে হিলি সীমান্তের দক্ষিণপাড়া দিয়ে অবৈধভাবে ভারতে যাই। পরে ভারতের হিলি থেকে কলকাতা যাওয়ার পথে বালুরঘাট বাসস্ট্যান্ডে ভারতের সিভিক পুলিশ আমাদের তিনজনকে আটক করে। পরে সেখান থেকে সানিকে পুলিশ ছেড়ে দেয় এবং আমাদের থানায় দেয়, পরে সেখান থেকে আমাদের বালুরঘাট শোভায়ন হোমে আটক রাখা হয়।
বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা আইনজীবী সমিতি দিনাজপুরের কো-অর্ডিনেটর শোয়েব আহম্মেদ জানান, দীর্ঘ আট মাস ভারতের শিশু শোভায়ন হোমে আটক থাকার পরে বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা আইনজীবী সমিতির দীর্ঘ আইনি প্রক্রিয়া শেষে এবং বাংলাদেশ সরকারের মাধ্যমে তাদের দেশে ফেরত আনা হয়েছে। তাদের স্ব-স্ব অভিভাবকের নিকট বুঝিয়ে দেওয়া হবে।
হিলি ইমিগ্রেশন চেকপোস্টের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রফিকুজ্জামান জানান, অবৈধভাবে ভারতে প্রবেশের দায়ে ভারতের বালুরঘাট শোভায়ন হোমে প্রায় ৮ মাস আটক থাকার পরে সাজার মেয়াদ শেষ হওয়ায় সরকারি বিধি মোতাবেক ওই দুই কিশোরকে ভারতের হিলি অভিবাসন পুলিশ আমাদের নিকট হস্তান্তর করে। পরে প্রক্রিয়া শেষে আমরা তাদের অভিভাবকদের কাছে বুঝিয়ে দিয়েছি।

Leave A Reply