রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি: কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলায় ‘ভ্যাকসিন হিরো সম্মান, স্বাস্থ্য সহকারীর অবদান” এই প্রতিপাদ্য বিষয়কে সামনে রেখে সারা দেশের ন্যায় রৌমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের -স্বাস্থ্য পরিদর্শক, সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক ও স্বাস্থ্য সহকারীদের চতুর্থ দিনেও কর্মবিরতি অব্যাহত রয়েছে। গত (২৬ নভেম্বর) থেকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চত্বরে এ কর্মবিরতি পালন করে আসছেন তারা । ১৯৯৮ সালের ৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ স্বাস্থ্য বিভাগীয় মাঠ কর্মচারী এসোসিয়েশনের মহাসমাবেশে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বেতন স্কেলসহ টেকনিক্যাল পদমর্যাদার ঘোষণা, ২০১৮ সালে স্বাস্থ্যমন্ত্রী কর্তৃক প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা বাস্তবায়নের প্রতিশ্রুতি এবং ২০ ফ্রেব্রুয়ারী ২০২০ ইং তারিখে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ও সচিব দাবী বাস্তবায়নে লিখিত সমঝোতাপত্রে স্বাক্ষর করেন। নিয়োগ বিধি সংশোধন পূর্বক বেতন বৈষম্য দূরীকরন করে স্বাস্থ্য পরিদর্শক-১১, সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক-১২ এবং স্বাস্থ্য সহকারীদের-১৩ তম গ্রেড প্রদানের দাবীতে কর্ম বিরতি পালন করা হয়। স্বাস্থ্য সহকারীদের কাজের অর্জনে বাংলাদেশ টিকাদানে বিশ্বের রোল মডেলে পরিণত হয়েছে এবং আন্তর্জাতিক অঙ্গনে পেয়েছে পুরস্কার ও অনেক সুনাম। উক্ত দাবীগুলো বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত এ কর্ম বিরতি চলবে। বাংলাদেশ হেল্থ এসিসট্যান্ট এসোসিয়েশনের ব্যানারে ডাকা কর্মবিরতির ফলে সারা দেশে এক লক্ষ বিশ হাজার অস্থায়ী টিকাদান কেন্দ্রে প্রতিদিন ২০ হাজার মা ও শিশু প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবা ও টিকা প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। আগামী ৫ ডিসেম্বর শুরু হতে যাওয়া হাম-রুবেলা টিকাদান ক্যাম্পেইন কার্যক্রম থেকেও বিরত থাকবে আন্দোলনকারীরা। দাবি পূরণে প্রজ্ঞাপন না হওয়া পর্যন্ত এই কর্মবিরতি অব্যাহত থাকবে বলে তারা জানিয়েছে।