কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি:
অভিমান করে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে এক নববধূ আত্নহত্যা করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলায়। নিহত ওই নববধুর নাম রুমি খাতুন (১৮)। সে উপজেলা সদরের চন্দ্রখানা কলোনী পাড়া গ্রামের স্যানেটারী মিস্ত্রি ইয়াছিন আলীর স্ত্রী। তার বাবার বাড়ী উপজেলার ভাঙ্গামোড় ইউনিয়নের বোয়াইল ভীড় গ্রামের রমজান আলীর মেয়ে। চার মাস আগে পারিবারিক বিয়ে হয় তাদের।

ফুলবাড়ী সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হারুন অর রশিদ জানান, সেহেরী খাওয়ার পড়ে স্বামী-স্ত্রী দুজনে একই ঘরে ঘুমিয়ে পড়েন। সোমবার সকাল ৮টার দিকে প্রতিবেশি হাসিনা ভীলার আক্কাছ আলীর কাজের এক কিশোরী পানির লাইন মেরামতের জন্য ইয়াছিন আলীর বাড়ীতে আসে। এ সময় তাকে বাহির থেকে কয়েকবার ডাক দেন। সাড়া না পেয়ে দরজা খোলা থাকায় ঘরে ঢুকে স্ত্রীর পাশে শুয়ে থাকা ঘুমন্ত ইয়াছিনের হাত ধরে টানতে শুরু করে ওই কিশোরী। এ সময় ইয়াছিন আলী হাত ঝাঁকুনি দেয়। ঝাঁকুনি পেয়ে ওই কিশোরী টিনের বেড়ায় পড়ে যান। এতে টিনের শব্দ হয়। টিনের শব্দে পেয়ে জেগে উঠে স্ত্রী রুমি খাতুন। কোন কিছু বুঝে উঠার আগে ওই কিশোরীকে ঘরের ভিতর দেখে স্বামীর বিরুদ্ধে সন্দেহ করেন রুমি খাতুন।

এ নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে সংসার করবেন না বলে বাড়ী থেকে বেড়িয়ে যান রুমি। পরে এলাকার মহিলারা তাকে বাড়িতে ফিরিয়ে নিয়ে আসে। এর মধ্যে রুমে ঢুকে দরজা লাগিয়ে ঘরে আড়ের সাথে ওড়না পেঁচিয়ে গলায় ফাঁস দেন সে। তার গোঙ্গানীর শব্দ পেয়ে ইয়াছিন আলীসহ বাড়ীর লোকজন বেড়া ভেঙ্গে তাকে উদ্ধার করে ফুলবাড়ী হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডাঃ সাইফুল ইসলাম তাকে মৃত ঘোষনা করেন।

ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনর্চাজ (ওসি) রাজিব কুমার রায় ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, এ ঘটনায় থানায় একটি ইউডি মামলা হয়েছে।